BHP BLOG

BHP BLOG

Google Web Search Gadget

শ্রীকৃষ্ণ এবং অর্জুন

শ্রীকৃষ্ণ এবং অর্জুন
অর্জুন তোমার আমার বহুবার জন্ম হয়েছে। সে কথা তোমার মনে নেই, সবই আমার মনে আছে।

Sunday, June 29, 2014

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

বাংলাদেশের সামাজিক বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যম ও গণ মাধ্যম গুলোতে হিন্দু বিদ্বেষী তথাকথিত বুদ্ধিজীবীদের একটি সস্তা রবীন্দ্র বিদ্বেষ মুলক তথ্য হল,কবিগুরু নাকি সে সময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেন।পেজে অনেকই এ বিষয়ে বিভিন্ন সময় জানতে চেয়েছেন।তাদের জন্য এ লেখা। এখন থেকে কোথাও এই ধরনের অপপ্রচার শুনলেই ওদের মুখের উপর এ লেখা ছুড়ে দেবেন।  

তৎকালীন পূর্ববাংলার (বর্তমান বাংলাদেশ) পশ্চাৎপদ মুসলিম জনগোষ্ঠীকে উচ্চশিক্ষায় আকৃষ্ট করার উদ্দেশ্যে ১৯২১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার বিরোধিতাও সে সময় কিছু লোকজন করেছিলেন। এই বিরোধিতাকারীদের মধ্য ছিলেন মুসলমান ও হিন্দু উভয় সম্প্রদায়ের ব্যক্তিবর্গ ছিলেন।  মৌলানা আকরাম খান আশঙ্কা প্রকাশ করেন যেসরকার বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য অর্থ বরাদ্দ করলে সাধারণ মুসলমানদের শিক্ষা সংক্রান্ত বিশেষ সুযোগ-সুবিধা দানের ক্ষেত্রে অর্থের ব্যবস্থা করবেন না। মুসলমানদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা অপেক্ষা প্রাইমারি ও সেকেন্ডারি (প্রাথমিক ও মাধ্যমিক) শিক্ষার প্রয়োজনীয়তার উপর তিনি গুরুত্ত্ব আরোপ করেন। আবদুর রসুল আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় মুসলমানদের পক্ষে ‘বিলাসিতা’ বলে আখ্যা দিয়েছিলেন।চব্বিশ পরগণার জেলা মহামেডান এসোসিয়েশন ১৯১২-র ১১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় প্রস্তাবিত বিশ্ববিদ্যায় স্থাপনের বিরোধিতা করে। হিন্দু সম্প্রদায়ের কিছু লোকজনও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করেন সে সময়ে। রাসবিহারী ঘোষ,আশুতোষ মুখারজি,সুরেন্দ্রনাথ ব্যানারজি প্রমুখ ছিলেন সে দলে।তবে পরবর্তিতে স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য শিক্ষক নিয়োগে সহযোগিতা করেন। তার সঙ্গে ছিলেন স্যার নীলরতন সরকার।
ঢাকার নবাব,এ কে ফজলুল হকদের পাশাপাশি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় পূর্ব বাংলার সব হিন্দুরা এগিয়ে এসেছিলেন। এদের মধ্যে ঢাকার বলিয়াদির জমিদার অন্যতম। জগন্নাথ হলের নামকরণ হয় তাঁর পিতা জগন্নাথ রায় চৌধুরীর নামে। জগন্নাথরায় চৌধুরীর নামেই ঢাকার জগন্নাথ কলেজের নামকরণ করা হয়েছিল।এদের অকাতর আর্থিক সহযোগিতা ও সর্বাত্মক সমর্থনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি ছিল।
থেকেই। যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের আদর্শে পরিকল্পিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই বহু গুণী মানুষের সান্নিধ্যে ধন্য হয়ে ওঠে। বাংলা ভাষার কালজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের (১৮৬১-১৯৪১) সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উজ্জ্বল সম্পর্কের কথা এ প্রসঙ্গে বিশেষভাবে উল্লেখ করা যায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সম্মানসূচক ডি লিট উপাধি প্রদান করেছে, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে রবীন্দ্রনাথ উপস্থাপন করেছেন গুরুত্বপূর্ণ দুটো বক্তৃতা। 


রবীন্দ্রনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ঘোর বিরোধী ছিলেন বলে একটা কথা বেশ কিছুকাল ধরে বাংলাদেশে মুখে মুখে প্রচার করছে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক কীটেরা কেউ কেউ কোনো প্রমাণ উপস্থিত না করেই লিখিতভাবে জানাচ্ছেন যে, ১৯১২ খ্রিষ্টাব্দের ২৮ মার্চ কলকাতায় গড়ের মাঠে রবীন্দ্রনাথের সভাপতিত্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতা করে এক বিরাট জনসভা হয়।কিন্তু মজার ব্যাপার হল মিথ্যাবাদীরা বরাবরই মিথ্যা তথ্য দিতেও ভুল করে।

 ১৯১২ সালের ১৯ মার্চ সিটি অব প্যারিস জাহাজযোগে রবীন্দ্রনাথের বিলাতযাত্রার কথা ছিল। তাঁর সফরসঙ্গী ডাক্তার দ্বিজেন্দ্রনাথ মিত্র জাহাজে উঠে পড়েছিলেন, কবির মালপত্রও তাতে তোলা হয়ে গিয়েছিল; কিন্তু আকস্মিকভাবে ওইদিন সকালে রবীন্দ্রনাথ অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে মাদ্রাজ থেকে তাঁর মালপত্র ফিরিয়ে আনা হয়কলকাতায় কয়েক দিন বিশ্রাম করে ২৪ মার্চ রবীন্দ্রনাথ শিলাইদহে চলে আসেন এবং ২৮ মার্চ থেকে ১২ এপ্রিলের মধ্যে সেখানে বসে ১৮টি গান ও কবিতা রচনা করেন, যা পরে গীতিমাল্য (১৯১৪) গ্রন্থে সংকলিত হয়। গীতিমাল্য-এর ৪ সংখ্যক কবিতা স্থিরনয়নে তাকিয়ে আছিযে শিলাইদহে ১৫ চৈত্র ১৩১৮ তারিখ (২৮ মার্চ ১৯১২) রচিত হয়, তা ওই গ্রন্থে কবিতাটির নিচেই লেখা আছে। উল্লেখযোগ্য যে, ইংরেজি গীতাঞ্জলির (১৯১২) সূচনাও হয় এ সময়ে।
এতথ্য আপনারা যাচাই করতে পড়তে পারেনঃ রবিপুত্র রথীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত ‘পিতৃস্মৃতি গ্রন্থ,ঠাকুরবাড়ির ক্যাশবহিতে লেখা আছেশ্রীযুক্ত রবীন্দ্র বাবু মহাশয় ও শ্রীযুক্ত রথীন্দ্র বাবু মহাশয় ও শ্রীমতি বধুমাতাঠাকুরাণী সিলাইদহ গমনের ব্যায় ৩৭৯ নং ভাউচার ১১ চৈত্র ১৫।।৩।. পরদিন সোমবার ১২ চৈত্র ২৫ মার্চ ১৯১২ খ্রিস্টাব্দে রবীন্দ্রনাথ মৌচাক পত্রিকার সম্পাদক সুধীরচন্দ্র সরকারের ভগ্নী  কাদম্বিনী দত্তকে (১২৮৫১৩৫০ বঙ্গাব্দ) এক চিঠিতে লেখেনএখনো মাথার পরিশ্রম নিষেধ। শিলাইদহে নির্জ্জনে পালাইয়া আসিয়াছি।২৪ মার্চ ১৯১২ (১১ চৈত্র ১৩১৮ বঙ্গাব্দ) বিশ্রামের উদ্দেশ্যে রবীন্দ্রনাথ শিলাইদহে রওনা হন। ১৯১২ সালের ২৮ শে মার্চ রবীন্দ্রনাথ একটি চিঠি লিখেছেন জগদানন্দ রায়কে। জগদানন্দ রায়  বিজ্ঞান বিষয়ক লেখকরবীন্দ্রনাথের পুত্রকন্যাদের গৃহশিক্ষক ও শান্তিনিকেতনের ব্রহ্মচর্যাশ্রমের শিক্ষক। (বিভা. পমাঘ-চৈত্র ১৩৭৬। ২৫৩পত্র৫)।প্রশান্তকুমার পাল রবিজীবনী গ্রন্থের ষষ্ঠ খণ্ডে জানাচ্ছেনএদিনই তিনি একটি কবিতা লেখেন। কবিতার নাম—‘ স্থির নয়নে তাকিয়ে আছি এই কবিতাটি গীতিমাল্য কাব্যগ্রন্থের অন্তর্ভুক্ত ৪ সংখ্যক কবিতা। এর পর বাকী ১৫ দিনে শিলাইদহে থেকে রবীন্দ্রনাথ আরও ১৭টি কবিতা বা গান লেখেন। এর মধ্যে একটি গানআমার এই পথ চাওয়াতেই আনন্দ। ১৪ চৈত্র১৩১৮ বঙ্গাব্দ। রচনার স্থান শিলাইদহ।


অর্থাৎ ১৯১২ সালের ২৮ মার্চ রবি ঠাকুর কোলকাতাতেই ছিলেন না, ছিলেন শিলাইদাহতে।অথচ এই মিথ্যুকেরা প্রচার করে ২৮ মার্চ নাকি কোলকাতার জনসভাতে সভাপতিত্ব করেন।

এ প্রসঙ্গে আরও একটি কথা। ১৯২৬ সালে রবীন্দ্রনাথ ঢাকা সফরে এসে যেভাবে প্রথমে ঢাকার নবাবের আতিথ্যলাভ করেন এবং পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সংবর্ধিত হন, তিনি ওই বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনে বিরোধিতা করে থাকলে তা সম্ভব হতো না এটা বুঝতে রকেট সাইন্টিস্ট হওয়া লাগে না
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ঢাকায় আসেন মোট দুবার১৮৯৮ সালে প্রথমবার, আর দ্বিতীয়বার ১৯২৬ সালে। এ ছাড়া ১৯২৮ সালে তাঁকে আরেকবার ঢাকায় আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়, কিন্তু ব্যক্তিগত অসুবিধার কারণে তিনি সেবার ঢাকায় আসতে পারেননি। একইভাবে শারীরিক অসুস্থতার কারণে ১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেও তিনি আসতে সমর্থ হননিতাঁর অনুপস্থিতিতেই তাঁকে প্রদান করা হয় ডি লিট উপাধি।

দ্বিতীয়বার ঢাকায় আসার পর রবীন্দ্রনাথের সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ১৯২৬ সালে রবীন্দ্রনাথ ঢাকায় আসেন ঢাকার জনগণ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ আমন্ত্রণে। Dacca University Students Union-এর ব্যবস্থাপনায় এ সময় রবীন্দ্রনাথ কার্জন হলে দুটো বক্তৃতা প্রদান করেন। ১০ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় তিনি উপস্থাপন করেন প্রথম বক্তৃতা: ‘The Big and the Complex’কার্জন হলে উভয় দিনেই রবীন্দ্রনাথের বক্তৃতা অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর জি এইচ ল্যাংলি। সভার প্রারম্ভে সমবেত সুধীদের কাছে রবীন্দ্রনাথের পরিচয় দিতে গিয়ে উপাচার্য বলেন: এটা আমাদের পক্ষে আজ একটা পরম সুযোগ যে, এই সন্ধ্যায় পৃথিবীর একজন শ্রেষ্ঠ শিল্পী সম্বন্ধে আমাদের কাছে কিছু বলবেন।ওই সন্ধ্যায় রবীন্দ্রনাথ দীর্ঘ ভাষণ উপস্থাপন করেন। তাঁর ভাষণের মূল কথা ছিল:শিল্প-সৃষ্টি বিষয় ও ভাবের আবেগময় বিবরণ বা নিবেদন। তাই এটা কখনোই ক্যামেরায় তোলা ফটোর মতো নয়। শিল্পী খুবই ভাবপ্রবণ এবং তাঁর এই প্রবণতা বিষয় নির্বাচনের রুচি-বাগীশতাতেই নয়, তাঁর শিল্পের প্রত্যেকটি বিস্তৃত ব্যাপারেও।...আমি গভীরভাবে বিশ্বাস করি, ঈশ্বর তাঁর সৃষ্টির মধ্যে বাস করেন। শিল্পীও তেমনি নিজেকে মেলে ধরেন তাঁর শিল্পের মাঝে। শিল্পীর শিল্পাদর্শ নিছক বিলাস বা কল্পনা-উদ্ভূত নয়, তা পরম বাস্তব।
কার্জন হলে রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় বক্তৃতার বিষয় ছিল: ‘The Big and the Complex’ তবে প্রকাশের সময়ে তিনি বক্তৃতার নতুন নাম দেন ‘The Rule of the Giant’

কার্জন হল ছাড়াও রবীন্দ্রনাথ একাধিক হলের সংবর্ধনায় বক্তৃতা দেন। ১০ ফেব্রুয়ারি অপরাহে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুসলিম হলের (বর্তমানে সলিমুল্লাহ হল) ছাত্ররা রবীন্দ্রনাথকে সংবর্ধনা জানান। সংবর্ধনা সভায় হলের ছাত্ররা রবীন্দ্রনাথকে  শ্রদ্ধা জানিয়ে একটি অভিনন্দনপত্র পাঠ করেন। মুসলিম হলের শিক্ষার্থীদের আন্তরিক সংবর্ধনায় রবীন্দ্রনাথ বিশেষভাবে অভিভূত হয়ে পড়েন। সংবর্ধনার উত্তরে তাই তিনি প্রথমেই বলেন, ‘এই সভাগৃহে প্রবেশ করার পর থেকে এ পর্যন্ত আমার ওপর পুষ্পবৃষ্টি হচ্ছে। প্রাচীন শাস্ত্রে পড়েছি কৃতী ব্যক্তির উপর পুষ্পবৃষ্টি হয়। এ পুষ্পবৃষ্টি যদি তারই প্রমাণ করে তবে আমি আজ আনন্দিত।অভিভাষণের শেষে কবি বলেন, ‘ঈশ্বর এক, তাঁর মধ্যে কোনো ভেদ নাই। যিনি সকল বর্ণের, সকল জাতির জন্য নিত্য, তার গভীর প্রয়োজন প্রকাশ করছেন। 

এছাড়া জগন্নাথ হলের ছাত্ররা যে সংবর্ধনা দেন তার মানপত্রখানি কার্জন হলে কবির হাতে  দেওয়ার সময় জগন্নাথ হলের ছাত্ররা হল বার্ষিকী বাসন্তিকার জন্য কবির কাছে একটি কবিতার জন্য অনুরোধ করেন। ছাত্রদের অনুরোধে বাসন্তিকা পত্রিকার জন্য বাসন্তিকাশিরোনামে রবীন্দ্রনাথ নিম্নোক্ত গীতিকবিতা রচনা করে হল প্রাধ্যক্ষ ডক্টর রমেশচন্দ্র মজুমদারের কাছে পরবর্তী সময়ে প্রদান করেন:
এই কথাটি মনে রেখো,/তোমাদের এই হাসি খেলায়/আমি যে গান গেয়েছিলেম/জীর্ণ পাতা ঝরার বেলায়।/শুকনো ঘাসে শূন্য বলে, আপন মনে./আদরে অবহেলায়/আমি যে গান গেয়েছিলাম/জীর্ণ পাতা ঝরার বেলায়/...

ঢাকা হল সমিতি কবির উদ্দেশে যে সংবর্ধনাপত্র রচনা করে, তার অংশবিশেষ ছিল নিম্নরূপ:নিখিলের প্রাণময়! পূরবের দীপ্তিমান রবি/বাঙালার চিরপ্রিয়তম।/ভারতের দীক্ষাগুরু। /সত্যাশিবসুন্দরের কবি।/ হে বিচিত্র। নমো নমো নমঃ।
১৯৩৬ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে সম্মানসূচক ডক্টর অব লিটারেচার উপাধি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ১৯৩৬ সালের ২৯ জুলাই এক বিশেষ সমাবর্তনে কবিকে এই উপাধি প্রদানের ব্যবস্থা  উল্লেখ্য, ওই সমাবর্তনেই স্যার আবদুর রহিম, স্যার জগদীশচন্দ্র বসু, স্যার প্রফুল্ল চন্দ্র রায়, স্যার যদুনাথ সরকার, স্যার মুহাম্মদ ইকবাল এবং কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়কেও সম্মানসূচক ডি লিট, উপাধি প্রদান করা হয়। 
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অনেক স্মৃতি জড়িয়ে আছে। এ বিষয়ে কৌতূহলী গবেষক আরও তথ্য আবিষ্কার করতে পারেন। রবীন্দ্রনাথ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যে দুটি বক্তৃতা উপস্থাপন করেন, বিষয়গৌরবে তা অতি উঁচুমানের। রবীন্দ্রনাথের ইংরেজি রচনার প্রায় সবকিছু বাংলায় অনূদিত হলেও, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রদত্ত বক্তৃতাদ্বয় এখনো বাংলায় অনূদিত হয়নি। এ সম্পর্কে বিশদ কোনো আলোচনাও কোথাও দৃষ্ট হয় না।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস নিয়ে গবেষণা করেছেন প্রফেসর রফিকুল ইসলাম। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আশি বছর নামে বই লিখেছেন। সেই বইয়ের কোথাও রবীন্দ্রনাথের বিরুদ্ধে এই ধরনের অভিযোগ পাওয়া যায় না।  ঢাকা বিশ্বিদ্যালয়ের অধ্যাপক গীতিআরা নাসরীন জানাচ্ছেন– রবীন্দ্রনাথের বিরুদ্ধে এই  অপপ্রচারের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় সিনেট বার্ষিক অধিবেশনের (২৮-২৯ জুন২০১১) আলোচনায় আসে।  অধ্যাপক ফকরুল আলমের কথার অংশ থেকে লিখছি…”….অবশ্যই তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে গ্রহণ করেছেন বলে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মাননায় এসেছিলেন।….যারা ইতিহাসকে এক জায়গায় রেখে দেয় তারা ইতিহাসকে বিকৃত করেতারা সত্যকে বিকৃত করে।….” (কার্যবিবরণীপৃ:১৭৮)।
বিরোধিতা করলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে প্রতিষ্ঠার পাঁচ বছরের মধ্যেই ভাষণ দেওয়ার জন্য আমন্ত্রণ করা হত না। ১৯৩৬ সালে তাকে ডিলিট উপাধী প্রদানের বিষয়েও বিরোধিতা হত। বরং তাঁকে দুবারই মুসলমান-হিন্দু সকল শ্রেণীর ব্যক্তিপ্রতিষ্ঠান আন্তরিকভাবে  সম্মাননা প্রদান করেছে। সর্বোপরি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতার সংবাদাদি সে সময়কার পত্রিপত্রিকায় পাওয়া যায়। কোথাও রবীন্দ্রনাথের বিরুদ্ধে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার বিরোধিতার কোনো অভিযোগ পাওয়া যায় না।


রথ যাত্রার ইতিকথাঃ


রথ যাত্রার ইতিকথাঃ
~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
রথ শব্দটি বলতেই আমাদের মনে ভেসে ওঠে পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রার ছবি। প্রাচীন ভারতীয় গ্রন্থ ‘ব্রহ্মাণ্ডপুরাণ’ ও ‘পদ্মপুরাণে’ও এই রথযাত্রার উল্লেখ পাওয়া যায়। পদ্মপুরাণে বলা হয়েছে যে আষাঢ় মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে রথযাত্রা অনুষ্ঠান শুরু করে শুক্লা একাদশীর দিন পূর্ণযাত্রা বা উল্টোরথ অনুষ্ঠিত হবার কথা। পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রাও প্রতি বছর আষাঢ় মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতেই অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। যদিও আষাঢ় মাসের পুষ্যানক্ষত্রযুক্ত শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতেই রথযাত্রা অনুষ্ঠিত হওয়ার নিয়ম। কিন্তু প্রতি বছর তো আর পুষ্যানক্ষত্রের সঙ্গে আষাঢ় মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথির যোগ হয় না, তাই কেবল ওই শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতেই রথযাত্রা শুরু হয়ে থাকে। তবে কখনও এই তিথির সঙ্গে পুষ্যানক্ষত্রের যোগ হলে সেটি হয় একটি বিশেষ যোগ-সম্পন্ন রথযাত্রা। পদ্মপুরাণে উল্লেখিত রথযাত্রায় শ্রীবিষ্ণুর মূর্তিকে রথারোহণ করানোর কথা বলা হয়েছে। আর পুরীর জগন্নাথদেবের মূর্তি যে শ্রীকৃষ্ণ তথা শ্রীবিষ্ণুরই আর একটি রূপ তা সকলেই স্বীকার করেন। তবে স্কন্দপুরাণে কিন্তু প্রায় সরাসরিভাবে জগন্নাথদেবের রথযাত্রার কথা রয়েছে। সেখানে ‘পুরুষোত্তম ক্ষেত্র মাহাত্ম্য’ কথাটি উল্লেখ করে মহর্ষি জৈমিনি রথের আকার, সাজসজ্জা, পরিমাপ ইত্যাদির বর্ণনা দিয়েছেন। ‘পুরুষোত্তম ক্ষেত্র’ বা ‘শ্রীক্ষেত্র’ বলতে পুরীকেই বোঝায়। অতএব দেখা যাচ্ছে যে সেই পুরাণের যুগেও এই রথযাত্রার প্রচলন ছিল।

পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রা:
~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~
‘উৎকলখণ্ড’ এবং ‘দেউল তোলা’ নামক ওড়িশার প্রাচীন পুঁথিতে জগন্নাথদেবের রথযাত্রার ইতিহাস প্রসঙ্গে বলা হয়েছে যে এই রথযাত্রার প্রচলন হয়েছিল প্রায় সত্যযুগে। সে সময় আজকের ওড়িশার নাম ছিল মালবদেশ। সেই মালবদেশের অবন্তীনগরী রাজ্যে ইন্দ্রদ্যুম্ন নামে সূর্যবংশীয় এক পরম বিষ্ণুভক্ত রাজা ছিলেন, যিনি ভগবান বিষ্ণুর এই জগন্নাথরূপী মূর্তির রথযাত্রা শুরু করার স্বপ্নাদেশ পেয়েছিলেন। পরবর্তিকালে রাজা ইন্দ্রদ্যুম্ন পুরীর এই জগন্নাথ মন্দির নির্মাণ ও রথযাত্রার প্রচলন করেন।প্রচলিত কাহিনি অনুসারে, কৃষ্ণ তাঁর ভক্ত রাজা ইন্দ্রদ্যুম্নের সম্মুখে আবিভূর্ত হয়ে পুরীর সমুদ্রতটে ভেসে আসা একটি কাষ্ঠখণ্ড দিয়ে তাঁর মূর্তি নির্মাণের আদেশ দেন। মূর্তিনির্মাণের জন্য রাজা একজন উপযুক্ত কাষ্ঠশিল্পীর সন্ধান করতে থাকেন। তখন এক রহস্যময় বৃদ্ধ ব্রাহ্মণ কাষ্ঠশিল্পী তাঁর সম্মুখে উপস্থিত হন এবং মূর্তি নির্মাণের জন্য কয়েকদিন সময় চেয়ে নেন। সেই কাষ্ঠশিল্পী রাজাকে জানিয়ে দেন মূর্তি নির্মাণকালে কেউ যেন তাঁর কাজে বাধা না দেন। বন্ধ দরজার আড়ালে শুরু হয় কাজ। রাজা ও রানি সহ সকলেই নির্মাণকাজের ব্যাপারে অত্যন্ত আগ্রহী হয়ে ওঠেন। প্রতিদিন তাঁরা বন্ধ দরজার কাছে যেতেন এবং শুনতে পেতেন ভিতর থেকে খোদাইয়ের আওয়াজ ভেসে আসছে। ৬-৭ দিন বাদে যখন রাজা বাইরে দাঁড়িয়েছিলেন এমন সময় আওয়াজ বন্ধ হয়ে যায়। অত্যুৎসাহী রানি কৌতুহল সংবরণ করতে না পেরে দরজা খুলে ভিতরে প্রবেশ করেন। দেখেন মূর্তি তখনও অর্ধসমাপ্ত এবং কাষ্ঠশিল্পী অন্তর্ধিত। এই রহস্যময় কাষ্ঠশিল্পী ছিলেন দেবশিল্পী বিশ্বকর্মা। মূর্তির হস্তপদ নির্মিত হয়নি বলে রাজা বিমর্ষ হয়ে পড়েন। কাজে বাধাদানের জন্য অনুতাপ করতে থাকেন। তখন দেবর্ষি নারদ তাঁর সম্মুখে আবির্ভূত হন। নারদ রাজাকে সান্ত্বনা দিয়ে বলেন এই অর্ধসমাপ্ত মূর্তি পরমেশ্বরের এক স্বীকৃত স্বরূপ।

বৌদ্ধযুগেও জগন্নাথদেবের রথযাত্রার অনুরূপ, রথে বুদ্ধদেবের মূর্তি স্থাপন করে রথযাত্রার প্রচলন ছিল। বিখ্যাত চিন পর্যটক ফা হিয়ান খ্রিস্টিয় পঞ্চম শতকে তৎকালীন মধ্য এশিয়ার খোটান নামক স্থানের যে বুদ্ধ রথযাত্রার বর্ণনা করেছেন তা অনেকাংশে পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। ফা হিয়ানের বিবরণ অনুযায়ী ত্রিশ ফুট উঁচু চার চাকার একটি রথকে বিভিন্ন রত্ন, অলঙ্কার ও বস্ত্রে সুন্দরভাবে সাজানো হত। রথটির চার পাশে থাকত নানা দেবদেবীর মূর্তি। মাঝখানে স্থাপন করা হত বুদ্ধদেবের মূর্তি। এর পর সেই দেশের রাজা তাঁর মুকুট খুলে রেখে খালি পায়ে রথের সামনে এসে নতমস্তকে বুদ্ধদেবের উদ্দেশে পুষ্পাঞ্জলি দেওয়ার পর মহাসমারোহে রথযাত্রা শুরু হত। পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রায় আজও আমরা দেখে থাকি যে প্রতি বছর রথযাত্রার উদ্বোধন করেন সেখানকার রাজা।

রাজত্ব না থাকলেও বংশ পরম্পরাক্রমে পুরীর রাজপরিবার আজও আছে। ওই রাজপরিবারের নিয়ম অনুসারে যিনি রাজা উপাধি প্রাপ্ত হন, তিনি অর্থাৎ পুরীর রাজা জগন্নাথ, বলভদ্র ও সুভদ্রাদেবীর পর পর তিনটি রথের সামনে এসে পুষ্পাঞ্জলি প্রদান ও সোনার ঝাড়ু দিয়ে রথের সম্মুখভাগ ঝাঁট দেওয়ার পরই পুরীর রথের রশিতে টান পড়ে। শুরু হয় জগন্নাথদেবের রথযাত্রা। উদ্বোধন অনুষ্ঠানের মতোই ফা হিয়ান বর্ণিত খোটানের বুদ্ধ রথযাত্রার সময়ের হিসাব করলে দেখা যায় যে সেটি পুরীর জগন্নাথদেবের রথযাত্রার মতোই আষাঢ় মাসে অনুষ্ঠিত হত। এ ছাড়া ফা হিয়েন ভারতে এসে পাটলিপুত্র নগরীতে কুড়িটি রথের এক বিশাল বুদ্ধ-রথযাত্রা দেখবার কথাও লিপিবদ্ধ করে গেছেন। প্রসঙ্গত উল্লেখযোগ্য এই যে, জগন্নাথদেবের রূপকে যেমন বিষ্ণুরই আর একটি রূপ বলে মানা হয় তেমনই বুদ্ধদেবকেও বিষ্ণুর দশ অবতারের নবম অবতার রূপে গণ্য করা হয়। জগন্নাথ মন্দিরের গায়ে যে দশাবতারের মূর্তি খোদিত আছে সেখানেও নবম অবতাররূপে বুদ্ধদেবের মূর্তি রয়েছে।

পুরীর রথযাত্রা উৎসব হচ্ছে বড় ভাই বলরাম বা বলভদ্র ও বোন সুভদ্রাকে সঙ্গে নিয়ে শ্রীকৃষ্ণের বৃন্দাবন যাত্রার স্মারক। তিন জনের জন্য আলাদা আলাদা তিনটি রথ। রথযাত্রা উৎসবের মূল দর্শনীয় হল এই রথ তিনটি। প্রথমে যাত্রা শুরু করে বড় ভাই বলভদ্রের রথ। এই রথের নাম তালধ্বজ। রথটির চোদ্দোটি চাকা। উচ্চতা চুয়াল্লিশ ফুট। রথের আবরণের রঙ নীল। তারপর যাত্রা করে সুভদ্রার রথ। রথের নাম দর্পদলন। উচ্চতা প্রায় তেতাল্লিশ ফুট। এই রথের মোট বারোটি চাকা। যেহেতু রথটির ধ্বজা বা পতাকায় পদ্মচিহ্ন আঁকা রয়েছে তাই রথটিকে পদ্মধ্বজও বলা হয়ে থাকে। রথের আবরণের রঙ লাল। সবশেষে থাকে জগন্নাথদেবের রথ। রথটির নাম নন্দীঘোষ। পতাকায় কপিরাজ হনুমানের মূর্তি আঁকা রয়েছে তাই এই রথের আর একটি নাম কপিধ্বজ। রথটির উচ্চতা পঁয়তাল্লিশ ফুট। এতে ষোলোটি চাকা আছে। প্রতিটি চাকার ব্যাস সাত ফুট। রথটির আবরণের রঙ হলুদ। তিনটি রথের আবরণীর রঙ আলাদা হলেও প্রতিটি রথের উপরিভাগের রঙ লাল।

এই ভাবে রথ তিনটি সমুদ্রোপকূলবর্তী জগন্নাথ মন্দির থেকে প্রায় দু’মাইল দূরে গুণ্ডিচা মন্দিরের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। সেখানে সাত দিন থাকার পর আবার উল্টোরথ অর্থাৎ জগন্নাথ মন্দিরে ফিরে আসা। এখন তিনটি রথ ব্যবহৃত হলেও আজ থেকে সাতশো বছর আগে রথযাত্রার যাত্রাপথ দুটিভাগে বিভক্ত ছিল। আর সেই দুটি ভাগে তিনটি-তিনটি করে মোট ছটি রথ ব্যবহৃত হত। কেননা সে সময় জগন্নাথ মন্দির থেকে গুণ্ডিচা আসার পথটির মাঝখান দিয়ে বয়ে যেত এক প্রশস্ত নালা। নাম ছিল বলাগুণ্ডি নালা। তাই জগন্নাথ মন্দির থেকে তিনটি রথ বলাগুণ্ডি নালার পার পর্যন্ত এলে পরে জগন্নাথ, বলভদ্র ও সুভদ্রার মূর্তি রথ থেকে নামিয়ে নালা পার করে অপর পারে অপেক্ষমাণ অন্য তিনটি রথে বসিয়ে ফের যাত্রা শুরু হত। ১২৮২ খ্রিস্টাব্দে রাজা কেশরী নরসিংহ পুরীর রাজ্যভার গ্রহণের পর তাঁর রাজত্বকালের কোনও এক সময়ে এই বলাগুণ্ডি নালা বুজিয়ে দেন। সেই থেকে পুরীর রথযাত্রায় তিনটি রথ।

Wednesday, May 21, 2014

গুজরাট দাঙ্গায় হিন্দুরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল

নরেন্দ্র ভাই মোদীকে সেকুলারিস্টরা নিন্দা জানায় এই বলে তিনি নাকি গুজরাট দাঙ্গা শুরু করেছিলেন এবং তাদের ক্ষোভ সেই দাঙ্গাতে মুসলিম মারা গিয়েছিল।

২০১১ সালের ১২ সেপ্টেম্বর সোমবার সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে বিশেষ তদন্ত দলকে (সিট) এ নির্দেশ দেওয়া হয়।
 
টাইমস অব ইন্ডিয়ার অনলাইন প্রতিবেদনে বলা হয়,
 তিন বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত সুপ্রিম কোর্টের একটি বিশেষ বেঞ্চ বলেন, ‘২০০২ সালে গুজরাটে দাঙ্গার ঘটনায় করা মামলাগুলোতে আমাদের আর কোনো পর্যবেক্ষণ নেই। সিটের প্রতিবেদনে মোদিকে কোনো দোষারোপ করা হয়নি। 

১১ মে ২০০৫ এ কংগ্রেসের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতিবেদন আসে
, দাঙ্গাতে ৭৯০ মুসলিম ও ২৯৪ হিন্দু মারা যায়। 


ভারতীয় মুসলিমদের দৈনিক মিল্লাত গেজেট ও টা প্রকাশ করেন 

http://www.milligazette.com/Archives/2005/01-15June05-Print-Edition/011506200511.htm



খবরটা বিবিসিতেও আসে 
 
http://news.bbc.co.uk/2/hi/south_asia/4536199.stm

গুজরাটের মোট জনসংখ্যার ৮৯% হিন্দু আর ৯% মুসলিম।


http://en.wikipedia.org/wiki/Gujarat#Demographics




গুজরাট দাঙ্গায় নিহতদের ২৪% হিন্দু আর ৭৬% মুসলিম। তাহলে আনুপাতিক হিসাবে গুজরাট দাঙ্গায় কারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল।

ভারতের নির্বাচন তার সাথে বাংলাদেশের মিডিয়া জগতে চলছে
, এক ধরনের রিউমেটিক ফিভার। যে আলোচনাতে প্রথমেই আসে শঙ্কার কথা। যদি হিন্দুত্ববাদী দল, বিজেপি সরকার গঠন করে, তাতে কি হতে পারে? পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও ত্রিপুরার বাহিরে বাংলাদেশ নিয়ে, অন্যান্য ভারতীয়রা কেউ মাথা ঘামায় না। অনেক মানুষ কিছু জানেই না। এক্ষেত্রে সে দেশের ধাত্রীর ভূমিকাতে, অযাচিতভাবে আছে বাংলাদেশের মিডিয়া ও কিছু ভাড়াটে বুদ্ধিজীবি। হিন্দুত্ববাদ,শব্দটি বাজারে চলবে বলেই, সুপরিকল্পিতভাবে এই শব্দটির ব্যবহার চলছে। আমাদের নিজের দেশে, বড় দুই দলই তো মৌলবাদী, সেখানে ওই দেশের হিন্দুত্ববাদী দল নিয়ে এত মাথা-ব্যথার কারণ কি? ছাগল বুদ্ধিজীবিরা কেন নিজের দেশ নিয়ে সমালোচনাতে নামে না?
বিজেপির মোদীকে, সে দেশের উচ্চ-আদালত, গুজরাত দাঙ্গাতে দোষী প্রমাণে ব্যর্থ হয়েছেন। সেখানে, মোদীকে ঘিরে বাংলাদেশের এই সলিমুল্লাহ না কলিমুল্লাহ বা কোন্‌ হরিদাস পাল, ***** মন্তব্য করে যাচ্ছেন, এই স্পর্ধা আসে কোথা থেকে? একটি দেশের উচ্চ-আদালতের সিদ্ধান্তকে শ্রদ্ধা করতে শিখুন। নিজে ইতর হলে মনে হয়, জগত জুড়ে কেবল ইতরামো। আমাদের দেশের আদালতের উপর আমাদের আস্থা নেই। যার পক্ষে যায়, সে বলে আদালত নিরপেক্ষ বিচার করেন। যার বিপক্ষে যায়, সে আদালতের মুণ্ড প্রকাশ্যে চিবায়। আর আমাদের কোনো হাই-কমান্ড অন্যায় করেন না। যদি কখনও কোনো মামলা রজ্জু করা হয়, তাতে শোনা যায়, সস্তা কথা- - -পলিটিকেলি মটিভেইটেড।
আর আদালতকে কাঁচকলা দেখানো, দেখে দেখে আমরা সাধারণ নাগরকিরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। এখন কোনো দেশের আদালত ব্যবস্থা একটু উন্নত দেখে বুঝি সহ্য হচ্ছে না? ওদেরকে আমাদের কাতারে না আনা পর্যন্ত, আনন্দ-ও মিলছে না। কিন্তু ভারতীয় আদালতের নির্দেশ অমান্য করার মতো, এত শক্তিশালী কেউ সে দেশে, সে প্রমাণ রাখেনি। মোদী যদি ক্ষমতায় আসেন, আপনার কি আশা করেন, আপনাদের মত ছাগলের সাথে কথা বলতে সে মানুষ আগ্রহী হবেন? সুতরাং ছাগলের তিন নম্বর বাচ্চার মতো কেন লাফাচ্ছেন? আপনারা মোদীকে এত কথা বলার আগে, একটু যাচাই করে নিন, নরেন্দ্র মোদী আপনাদেরকে মানুষ হিসেবে গণ্য করেন কি না? সেটুকু জানলে আরেকটু ভালো হত না?
কথায় কথায় গুজরাতের দাঙ্গায় নিহতের শোকে, বাংলাদেশের উন্নত মুসলমানের হ্নদয় ভারী হয়ে আসে? বাহ্‌ কি প্রেম? মাছের মা'র পুত্রশোক। চোখের সামনে সিরিয়াতে, হাজার অতিক্রম করে এখন নিহতের সংখ্যা লক্ষ অতিক্রম করেছে। চল্লিশ বছরের বেশী সময় ধরে আফগানিস্থানে কত লক্ষ মরেছে, সে হিসেব নেই। পাকিস্তানে, রোজ মরছে। ক'বার নিন্দা জানান? উন্নত মুসলমান'রা চোখে দেখেন না? না কি ওরা মুসলমান নয়? এখানে সত্য কি? যারা গুজরাতের জন্য কাঁদেন, অন্য দেশের মুসলমান নর-নারী শিশু-বৃদ্ধ - - - হত্যা দেখে আপনাদের চোখে জল আসে না? আপনারা কি গুজরাতের ভাষায় কথা বলেন? কালচারের মিল আছে? তা হলে এত ভাব দেখানো যে, উদ্দেশ্য-প্রণোদিত তাই প্রমাণ করে।
যারা কেবল একপেশে বিচার করে, নরেন্দ্র মোদীকে দায়ি করছেন। অথচ ওই ঘটনার সূচনা নিয়ে কথা বলেন না, এড়িয়ে যান, নিন্দা জানাতে জানেন না, এ আপনাদের কেমন বিচার? যদি গোধরা স্টেশনে হত্যাকাণ্ডের মতো, বিশ্ব -এজতেমা ফেরত একটি ট্রেনে, কোন উগ্র হিন্দুরা বা বৌদ্ধরা মিলে পেট্রল বোমাতে, একশো মানুষ জীবিত পুড়ে মারে, কি হবে অবস্থা? তখন কি কবি নজরুলের কবিতা আবৃত্তি করবেন? গাহি সাম্যের গান- - - -!! যারা, ইচ্ছাকৃতভাবে কেবল দ্বিতীয় পর্যায়ের হত্যা নিয়ে কথা বলেন, আপনার হলেন জাত ইতর!! যদি সমালোচনা ও নিন্দা জানাতে হয়, তবে যে কোন অন্যায়-কে, ছাড় দেবেন না। অন্যায় মানে অন্যায়। আর যদি সে সাহস না থাকে, চাটুকারি ছেড়ে চুপ করুন। ছাগলের পাল স্ব-ঘোষিত বুদ্ধিজীবিদের জন্য বাংলাদেশ জ্বলতে শুরু করছে। একদিন নিয়ন্ত্রণের সম্পূর্ণ বাহিরে চলে যাবে। পশুদের মধ্যে গাধার বুদ্ধি তুনামুলক কম। শৃগালের বুদ্ধি অনেক বেশী। তাই শৃগালের ব্যারিস্টার হওয়ার আগে যাচাই করেন, গাধা আপনাদেরকে বুদ্ধি-দাতা হিসেবে মানে কি না?

Friday, May 2, 2014

চাঁপাইনবাবগঞ্জে মন্দির ভাঙ্গার সময় নয় মুসলিম সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার



তথাকথিত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেরায় মঙ্গলবার একটি প্রাচীন মন্দির ভাঙ্গার সময় নয় ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ এরা প্রত্যেকে ধর্মান্ধ মুসলিম।

এরা হল জেলা শহরের কাঁঠাল বাগিচার নুরুল ইসলাম (৬৫), মসজিদ পাড়ার সুইট হাসান (২৯), নাচোল বাজারের গোলাম বারকি (২৮), শহীদ মোমিন (৬৫), শাহাজাহন (৩২), ওয়াজেদ (৬০), শের আলী মোল্লা (৫০), সাদিরুদ্দিন (৪২) ফারুক হোসেন (২৮)

নাচোল থানার ওসি মো. সানাউল হক জানান, দেওপাড়া এলাকার একটি জমিতে প্রাচীন এই মন্দিরটির অবস্থান মন্দিরের জমিটি নুরুল ইসলাম নিজের দাবি করে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে লোকজন নিয়ে তা ভাংতে শুরু করে

সময় এলাকাবাসীর কাছে খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানান ওসি ঘটনার পর নাচোল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুফিয়া আক্তার রুমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন

বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খৃস্টান ঐক্য পরিষদরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সভাপতি রঞ্জন রানী বর্মন জানান, মন্দিরটি বৃটিশ আমলে তৈরি নুরুল তার লোকজন মন্দিরের ক্ষতি সাধন করেছে

Labels

বাংলা (171) বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতন (22) ethnic-cleansing (17) ভারতীয় মুসলিমদের সন্ত্রাস (17) islamic bangladesh (13) ভারতে হিন্দু নির্যাতন (12) : bangladesh (11) হিন্দু নির্যাতন (11) সংখ্যালঘু নির্যাতন (9) সংখ্যালঘু (7) আরব ইসলামিক সাম্রাজ্যবাদ (6) minority (5) নোয়াখালী দাঙ্গা (5) হিন্দু (5) hindu (4) minor (4) নরেন্দ্র মোদী (4) বাংলাদেশ (4) বাংলাদেশী মুসলিম সন্ত্রাস (4) ভুলে যাওয়া ইতিহাস (4) love jihad (3) গুজরাট (3) বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন (3) বিজেপি (3) ভারতে অনুপ্রবেশ (3) মুসলিম বর্বরতা (3) হিন্দু নিধন (3) George Harrison (2) Julia Roberts (2) List of converts to Hinduism (2) bangladesh (2) কলকাতা (2) গুজরাট দাঙ্গা (2) বাবরী মসজিদ (2) মন্দির ধ্বংস (2) মুসলিম ছেলেদের ভালবাসার ফাঁদ (2) লাভ জিহাদ (2) শ্ত্রু সম্পত্তি আইন (2) সোমনাথ মন্দির (2) হিন্দু এক হও (2) হিন্দু মন্দির ধ্বংস (2) হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা (2) Bhola Massacre (1) English (1) april fool. মুসলিম মিথ্যাচার (1) converted hindu celebrity (1) converting into hindu (1) dharma (1) facebook (1) gonesh puja (1) gujrat (1) gujrat riot (1) jammu and kashmir (1) om (1) religion (1) roth yatra (1) salman khan (1) shib linga (1) shib lingam (1) swami vivekanada (1) swamiji (1) অউম (1) অক্ষরধাম মন্দিরে জঙ্গি হামলা ২০০২ (1) অধ্যক্ষ গোপাল কৃষ্ণ মুহুরী (1) অর্পিত সম্পত্তি আইন (1) আওরঙ্গজেব (1) আদি শঙ্কর বা শঙ্করাচার্য (1) আর্য আক্রমণ তত্ত্ব (1) আসাম (1) ইতিহাস (1) ইয়াকুব মেমন (1) উত্তরপ্রদেশ (1) এপ্রিল ফুল (1) ওঁ (1) ওঁ কার (1) ওঁম (1) ওম (1) কবি ও সন্ন্যাসী (1) কাদের মোল্লা (1) কারিনা (1) কালীঘাট মন্দির (1) কাশী বিশ্বনাথ মন্দির (1) কৃষ্ণ জন্মস্থান (1) কেন একজন মুসলিম কোন অমুসলিমের বন্ধু হতে পারে না? (1) কেন মুসলিমরা জঙ্গি হচ্ছে (1) কেশব দেও মন্দির (1) খ্রিস্টান সন্ত্রাসবাদ (1) গনেশ পূজা (1) গুজরাটের জঙ্গি হামলা (1) জাতিগত নির্মূলীকরণ (1) জামাআ’তুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (1) জেএমবি (1) দেশের শত্রু (1) ধর্ম (1) ধর্মযুদ্ধ (1) নবদুর্গা (1) নববর্ষ (1) নালন্দা (1) নালন্দা বিশ্ববিদ্যালয় (1) নোয়াখালি (1) পঞ্চ দেবতার পূজা (1) পহেলা বৈশাখ (1) পহেলা বৈশাখ কি ১৪ এপ্রিল (1) পাকিস্তানী হিন্দু (1) পূজা (1) পূজা ও যজ্ঞ (1) পূজার পদধিত (1) পৌত্তলিকতা (1) ফেসবুক (1) বখতিয়ার খলজি (1) বরিশাল দাঙ্গা (1) বর্ণপ্রথা (1) বর্ণভেদ (1) বলিউড (1) বাঁশখালী (1) বিহার (1) বুদ্ধ কি নতুন ধর্ম প্রচার করেছেন (1) বৈদিক ধরম (1) বৌদ্ধ দর্শন (1) বৌদ্ধ ধর্ম (1) ভারত (1) মথুরা (1) মরিচঝাঁপি (1) মানব ধর্ম (1) মিনি পাকিস্তান (1) মীরাট (1) মুক্তমনা (1) মুক্তিযুদ্ধ (1) মুজাফফরনগর দাঙ্গা (1) মুম্বাই ১৯৯৩ (1) মুলতান সূর্য মন্দির (1) মুলায়ম সিং যাদব (1) মুসলিম তোষণ (1) মুসলিম ধর্ষক (1) মুসলিমদের পুড়ে মারার ভ্রান্ত গল্প (1) মুহাম্মদ বিন কাশিম (1) মূর্তি পুজা (1) যক্ষপ্রশ্ন (1) যাদব দাস (1) রথ যাত্রা (1) রথ যাত্রার ইতিহাস (1) রবি ঠাকুর ও স্বামীজী (1) রবি ঠাকুরের মা (1) রবীন্দ্রনাথ ও স্বামীজী (1) রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (1) রিলিজিওন (1) রুমি নাথ (1) শক্তিপীঠ (1) শঙ্করাচার্য (1) শিব লিংগ (1) শিব লিঙ্গ (1) শিব লিঙ্গ নিয়ে অপপ্রচার (1) শ্রীকৃষ্ণ (1) সনাতন ধর্ম (1) সনাতনে আগমন (1) সাইফুরস কোচিং (1) সালমান খান (1) সোমনাথ (1) স্বামী বিবেকানন্দ (1) স্বামীজী (1) হিন্দু ও বৌদ্ধ ধর্ম (1) হিন্দু জঙ্গি (1) হিন্দু ধর্ম (1) হিন্দু ধর্ম গ্রহন (1) হিন্দু বিরোধী মিডিয়া (1) হিন্দু মন্দির (1) হিন্দু শিক্ষার্থীদের মগজ ধোলাই (1) হিন্দুধর্মে পৌত্তলিকতা (1) হিন্দুরা কি পৌত্তলিক? (1) ১লা বৈশাখ (1) ১৯৭১ (1)

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Blogger Tips and TricksLatest Tips And TricksBlogger Tricks

সর্বোচ্চ মন্তব্যকারী